রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ন

এর আগে এত দগ্ধ রোগী কখনো দেখিনি

mm
অনলাইন ডেস্কঃ-
  • আপডেট সময় শনিবার ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১০৩বার পঠিত
নারায়নগন্জ

শুক্রবার এশারের নামাজের পর বেতর নামাজ পড়ারত অবস্থায় তল্লা চামার বাড়ি বাইতুল সালাত জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দগ্ধ ৪০ জনের মধ্যে ৩৭ জনকে ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, একসঙ্গে এত দগ্ধ রোগী কখনো দেখিনি। তবে আমাদের এখানে যতজন রোগী এসেছিল সবাইকে আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকায় রেফার্ড করেছি। শুধু একজন মহিলা রোগীকে রাখা সম্ভব হয়েছে। আর বাকিদের আমরা ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে রেফার্ড করেছি। কারণ তাদের অবস্থা আশংকাজনক।

তিনি বলেন, তাদেরকে এখানে চিকিৎসা সেবা দেয়ার অবস্থা নেই। বেশিরভাগের ৬০ ভাগের উপরে পুড়ে গেছে। কারো কারো ৯২ ভাগ বার্নও রয়েছে। এ কারণে বিশেষায়িত হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থলে যাওয়া নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো.জসিম উদ্দিন বলেন, ঘটনাস্থল রেড টেপ দিয়ে আটকিয়ে দেয়া হয়েছে। আমি সদর হাসপাতালে (ভিক্টোরিয়া) গিয়েছিলাম, অধিকাংশই ঢাকা মেডিকেলে চলে গেছে। আমি স্বাস্থ্য সচিব এবং কেবিনেট সেক্রেটারিসহ সবার সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাকে আশ্বস্ত করেছেন যারা গিয়েছে তাদের খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে। সবাইকে ধৈর্য ধরার এবং দোয়া করার অনুরোধ করব।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, ঢাকা মেডিকেলে ৩৭ জন আহত অবস্থায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদের মধ্যে ৩-৪ জনের অবস্থা গুরুতর। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, বিদ্যুতের লুজ কানেকশন বা গ্যাস লিকেজ থেকে এ বিস্ফোরণ হতে পারে। সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বাত্মক চেষ্টা করেছে দ্রুত আহতদের চিকিৎসা ব্যবস্থা করার।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ বাচ্চু জানান, নারায়ণগঞ্জে মসজিদের বিস্ফোরণের ঘটনায় ৩৭ জন বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদের মধ্যে ৩-৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদের মধ্যে ১ জনের অবস্থা অত্যন্ত গুরুতর।


এ জাতীয় আরো খবর..