বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন

পেঁয়াজ মজুতদারীরা সাবধান,গুনতে হতে পারে জরিপানা

mm
অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় বুধবার ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৯৫বার পঠিত

হঠাৎ অস্থির হয়ে উঠেছে পেঁয়াজের বাজার। তবে বাজারে এর সরবরাহে কোনো ঘাটতি নেই। চাষি ও ব্যবসায়ী পর্যায়ে পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানির জন্য ব্যবসায়ীরা এলসি খুলছেন। এ অবস্থায় জনগণ যাতে যৌক্তিক দামে কিনতে পারে, সে জন্য ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করার পাশাপাশি পেঁয়াজ নিয়ে যে কোনো ধরনের কারসাজি ও মজুদদারির বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অবৈধ মজুদ রোধে গতকালই দেশের বিভিন্ন বাজারে অভিযানে নেমেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসন। আজ বুধবার সামগ্রিক পরিস্থিতি তুলে ধরতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন। এ সংবাদ সম্মেলনে মজুদদারির বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি ঘোষণা করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

বাণিজ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বাজারে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক রাখতে টিসিবির মাধ্যমে বিক্রি বাড়ানো হবে। পাশাপাশি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেও বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া আমদানি খরচ কমাতে আমদানি শুল্ক্ক তুলে নেওয়ার জন্য মঙ্গলবার পুনরায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। চীন, মিসর, তুরস্ক, হল্যান্ড, নিউজিল্যান্ডসহ পেঁয়াজ আমদানির সব উৎস থেকে যাতে ব্যবসায়ীরা আমদানি করতে পারেন, সে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, এ বছর করোনার কারণে অনেক অনুষ্ঠান হয়নি, হোটেল-রেস্তোরাঁ বন্ধ ছিল। ফলে পেঁয়াজের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। আমরা আশা করছি, বাজার স্বাভাবিক থাকবে। পাশাপাশি দেশের ভেতর কেউ যাতে কারসাজি করতে না পারে, সে জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, জেলা প্রশাসন- সব পর্যায় থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে, যাতে কেউ সুযোগ নিতে না পারে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, দেশে পেঁয়াজের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে।পাশাপাশি প্রয়োজনীয় আমদানির জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

তবে কোথাও কেউ কোনো ধরনের কারসাজি করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থাও নেওয়া হবে। সেজন্য রাজধানী ও জেলা পর্যায়ে ব্যাপক অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাবুল কুমার সাহা জানিয়েছেন, ভোক্তার স্বার্থ সংরক্ষণে সারাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পাইকারি ও খুচরা বাজারে তদারকি কার্যক্রম চলছে। প্রয়োজনে এ কার্যক্রম আরও জোরদার করা হবে। দেশে পেঁয়াজ, আদা, আলু, চালসহ অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ ও সরবরাহ রয়েছে। নায্যমূল্যে এসব কেনাবেচা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এদিকে,এক দিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় গতকালই দেশের বিভিন্ন জেলার বাজারে অভিযান চালায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসন। ভোক্তা অধিদপ্তর জানিয়েছে, গতকাল সারাদেশে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও তাদের ৫০টি টিম ৯৮টি বাজারে অভিযান চালায়। এতে ১৫২টি প্রতিষ্ঠানকে পেঁয়াজের অতিরিক্ত দাম রাখাসহ অন্যান্য পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগে ৮ লাখ ৭২ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বেশি দামে বিক্রি করার অভিযোগে ঠাকুরগাঁওয়ের গোবিন্দনগর সমবায় মার্কেটের আল আমিন ট্রেডার্সকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন। গাইবান্ধা সদর ও সাদুল্যাপুর উপজেলার ছয় ব্যবসায়ীকে ২৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভোক্তা অধিদপ্তর সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আবদুস ছালাম। ময়মনসিংহ শহরের মেছুয়া বাজারে অভিযান চালিয়ে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঈদুল ইসলাম। যশোরের শার্শা উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পুলক কুমার মণ্ডল গতকাল বেনাপোল বাজারে অভিযান চালিয়ে তিন প্রতিষ্ঠানকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। কুমিল্লা শহরের চকবাজারে অভিযান চালিয়ে পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে ৩২ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আছাদুল ইসলাম।


এ জাতীয় আরো খবর..