মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন

বান্দরবানে পার্বত্য চুক্তি পুনর্মূল্যায়নের দাবিতে (পিসিএনপি)’র সংবাদ সম্মেলন

mm
আল মামুন পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় বুধবার ২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৮৩বার পঠিত

বান্দরবান জেলা পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ সংবিধানের সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির সাংঘর্ষিক ও বৈষম্যমূলক ধারাগুলো সংশোধন করে চুক্তি পুনঃমূল্যায়নসহ আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমার পদত্যাগ, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও প্রত্যাহারকৃত নিরাপত্তাবাহিনীর ক্যাম্প পুনঃস্থাপনের দাবি জানিয়েছে।

বুধবার (০২ডিসেম্বর) সকাল ৯টা ৩০মিনিটে বান্দরবান বাজারের হেটেল জাফরান মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান সংগঠনটির নেতারা।

০২ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তিকে সামনে রেখে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ বান্দরবান জেলা সভাপতি কাজী মো. মজিবর রহমান।

এতে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান, জেলা সহ-সভাপতি মো. তরু মিয়া, কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মো. আলীম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নাছির উদ্দীনসহ অন্য নেতারা।

লিখিত বক্তব্যে মো. বলেন, একদিকে চুক্তির পর পার্বত্য অঞ্চলে একে একে কয়েকটি সশস্ত্র সংগঠন জেএসএস(সন্তু), জেএসএস(এমএন লারমা), ইউপিডিএফ(প্রসিত) ও ইউপিডিএফ(গণতান্ত্রিক) পার্বত্য অঞ্চলে চাঁদাবাজিসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। তাদের কাছে পাহাড়ি বাঙালিরা জিম্মি। অশান্তি সৃষ্টির মূলে রয়েছে চারটি সশস্ত্র গ্রুপ। এ চারটি গ্রুপের মধ্যে

যতদিন সশস্ত্র সংঘর্ষের অবসান না হবে ততদিন পাহাড়ে শান্তি আসবে না। তাই তাদের নির্মূল করা জরুরি।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও উল্লেখ্য বলেন, এই চারটি সশস্ত্র গ্রুপ পার্বত্য চট্টগ্রামকে চাঁদাবাজির অভয়ারণ্যে পরিণত করেছে। সেখানে সব্জি বিক্রি থেকে শুরু করে সব ধরনের কৃষিকাজ, ব্যবসা, অন্যান্য অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, সব ধরনের পেশার ওপর নির্ধারিত হারে চাঁদা ধার্য করে বছরে প্রায় ৪শ’কোটি টাকা চাঁদা আদায় করে থাকে এই চারটি সংগঠন। চাঁদা না দিলে তারা হত্যা, গুম, অপহরণ, নির্যাতন চালায় বলেও নাগরিক পরিষদের পক্ষে অভিযোগ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আঞ্চলিক পরিষদ থেকে সন্তু লারমার পদত্যাগ, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও প্রত্যাহারকৃত নিরাপত্তাবাহিনীর ক্যাম্প পুনঃস্থাপনের দাবি জানানো হয়।

শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..

Adcash

Adcash