বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

গাইবান্ধায় পহেলা ফাল্গুন ও বিশ্ব ভালবাসা দিবসে ফুলের দোকান গুলোতে ক্রেতার উপস্থিতি কম

mm
আল কাদরি কিবরিয়া সবুজ, (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:
  • আপডেট সময় রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৭১বার পঠিত


গাইবান্ধায় পালিত হলো ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন পহেলা ফাল্গুন ও বিশ্ব ভালবাসা দিবস। বিশ্ব ভালবাসা দিবস ও পহেলা ফাল্গুন উপলক্ষে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে শহরের ফুল ব্যবসায়ীরা তাদের দোকানের সামনে বিভিন্ন রং-বেরঙের ফুলের পসরা সাজিয়ে বসে ছিল। ক্রেতাদের চোখকে আকৃষ্ট করতে ফুল ব্যবসায়ীরা গোলাপ, গ্লাডিউলাস, জিপসিসহ বিভিন্ন প্রকার ফুল বিভিন্ন কালারে দোকান সেজে রেখেছিল। তবে করোনা ভাইরাসের কারনে এবার ফুলের দোকানগুলোতে চোখে পড়া কোন ভীর দেখা যায়নি। দিবসটিতে প্রেমিক, প্রেমিকা, বন্ধু- বান্ধবী, তরুন- তরুনী, স্বামী- স্ত্রী সহ বিভিন্ন বয়সী মানুষ উভয়ই তাদের ভালবাসার মানুষকে ফুলসহ নানা উপহার সামগ্রী তুলে দিয়ে দিবসটি পালন করেছে। বিশেষ করে তরুণীরা মাথায় ফুলের ব্যান্ড পরে নিজেকে ফুলের রঙে সাজিয়ে তাদের প্রিয়জনকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

গাইবান্ধা শহর ঘুরে দেখা গেছে, মনিষা ফুল ঘর, লিতু ফুল ঘর, জলসিড়ি ফুল ঘর সহ অন্যান্য ফুল ঘরে ক্রেতারা তাদের ভালবাসার মানুষকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে ফুলের ঘ্রান নিতে ফুলের দোকানে গিয়েছেন। সে সাথে তরুনীদেরকে মাথায় ফুলের ব্যান্ড পরে অটোরিক্সায় ঘুরে দিনটি পালন করতে দেখা গেছে।
শহরের মুন্সিপাড়া থেকে লিতু ফুল ঘরে ফুলের ব্যান্ড ও ফুল নিতে আসা অনেক তরুন-তরুণী এ প্রতিবেদককে জানান- ভালবাসা একদিনের জন্য না। ভালোবাসা সব দিনের জন্যই। আর ভালোবাসা শুধু ছেলে মেয়ে জন্য, সেটা না। বাবা মা- সবার জন্য ভালবাসা অবশ্যই। আজকের দিনটা বিশ্ব ভালবাসা দিবস তাই মানুষ উদযাপন করছে। হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন্স ডে।

অন্যদিকে শহরের মধ্যপাড়া থেকে আসা ফুল ক্রেতা তনু রানী সরকার এ প্রতিবেদককে জানান- ভালবাসা সবার জন্য। বাবা, মা, ভাই-বোন। বিশেষ করে আমরা বিবাহিত মহিলারা যার হাত ধরে দীর্ঘ পথটি পাড়ি দিয়ে আসছি তার জন্য অবশ্যই বিশেষভাবে প্রয়োজন।

গাইবান্ধা শহরের জলসিড়ি ফুল ঘরের ফুল বিক্রেতা মোঃ তাহমিদুল এজাজ তৌহিদ জানান- আজ পহেলা ফাল্গুন ও বিশ্ব ভালবাসা দিবস। ফুল মোটামুটি ভাল বিক্রি হচ্ছে। তবে চাহিদা মত দাম নেই। করোনার কারনে ফুলের বিজনেস আগের মত হচ্ছে না। কম হয়ে যাচ্ছে। মোটামুটি ফুলের চাহিদা আছে। পহেলা ফাল্গুন ও বিশ্ব ভালবাসা দিবস হওয়ায় সবাই আসছে ফুল ক্রয় করতে ও ফুলের ঘ্রান নিতে। ইনশাআল্লাহ আরো বাড়বে। অন্যান্য বছরের চেয়ে একটু কম। করোনার কারনে ফুলের বাগান অনেক উঠে যাওয়ায় ফুলের দাম বেশি। বাগানের পরিমাণ কমে যাওয়ায় যে কটি বাগান আছে তারাই ফুল বিক্রি করছে। ফুল বেশি দামে কেনা পড়ায় বেশি দামে ফুল বিক্রি করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..