মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
পৌরসভা নির্বাচন ২০২০, মেয়র প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতিক পেলেন যারা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ সাঘাটায় মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই অনুষ্ঠিত দূর্গাপুরে কৃষক লীগের উদ্যোগে প্রান্তিক কৃষকদের কৃষি বীজ বিতরণ কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় ৪২ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ ২০২০ পালিত কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় অটো থেকে ছিটকে নারী মৃত্যু ১ সাপাহারে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের এজেন্ট শাখার শুভ উদ্বোধন আলোর পথযাত্রী’ সহায়তায় সুস্থ হলেন ভ্যান চালক নাছের ধামইরহাটে দার্জিলিং জাতের কমলার চারা রোপন ধামইরহাটে জঙ্গিবাদ মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যুবলীগের বিক্ষোভ সমাবেশ বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন একসঙ্গে ৪৩ জন সাঁতারু র‍্যাবের অভিযানে চকরিয়ায় বাস ডাকাতির ঘটনায় ৬ ডাকাত গ্রেফতার ধামইরহাটে অজ্ঞাত রোগে মাছে মড়ক, ৩০ লাখ টাকার ক্ষতিতে মৎস্যচাষী’র হাহাকার চকরিয়ায় হরিনের মাংস বিক্রির অভিযোগে ১ ব্যক্তির ৩ মাসের সাজা পুঠিয়ায় মাস্ক না পরায় সচেতনতার পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদন্ড

ফের সময় বাড়ছে ৫৬০ টি মডেল মসজিদ নির্মাণে

অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় রবিবার ৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০৩ বার পঠিত

৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পটির মেয়াদ চলতি বছর ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে। আড়াই বছর পার হলেও প্রকল্পটিতে কাঙ্ক্ষিত গতি নেই। কার্যাদেশ দিয়েও এখনো ৯৫টি স্থানের জমির দখল বুঝে পায়নি ইসলামি ফাউন্ডেশন (ইফা)। করোনার প্রভাবে মিলছে না কাঙ্ক্ষিত বরাদ্দ। প্রকল্পটিতে কিছু স্থানে এখনো নকশা চূড়ান্ত হয়নি। ইফা সূত্র জানায়, প্রতিটি জেলায় চারতলা বিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করার লক্ষ্য রয়েছে। কিন্তু আগস্ট পর্যন্ত মাত্র পাঁচটি মসজিদের চতুর্থ তলা ছাদ ঢালাই সম্পন্ন হয়েছে।

প্রকল্পটিতে অতি সম্প্রতি প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব নিয়েছেন মো. নজিবর রহমান (অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী)। সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকে বলেন, চলতি অর্থবছরে প্রকল্পটিতে চাহিদার অর্ধেক টাকাও বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। করোনার প্রভাবেও কাজ ধীরগতি হয়েছে। পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ করতে আরো অন্তত দুই বছর সময় প্রয়োজন। নির্মাণকাজের ব্যয় বাড়তে পারে ১৮ শতাংশের মতো। তবে বিষয়টি এখনো প্রক্রিয়াধীন। তিনি জানান, ইতিমধ্যে প্রকল্প সংশোধনের বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০১৪ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে উন্নত মসজিদ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন। সেই ধারাবাহিকতায় প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সংস্কৃতিকেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প নেওয়া হয়। ইতিপূর্বে ১ম সংশোধিত আকারে ৮ হাজার ৭২২ কোটি টাকা ব্যয়ে এপ্রিল, ২০১৭ হতে ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত মেয়াদে বাস্তবায়নে অনুমোদিত হয়। প্রকল্পটিতে প্রত্যাশিত সৌদি অনুদান না পাওয়ায় নিজস্ব ব্যয়ে নির্মাণের লক্ষ্যে সংশোধন করে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পের শুরু থেকেই ভূমি জটিলতায় বিভিন্ন স্থানে কাজ শুরু করতে বিলম্ব হয়। ইফা সূত্রে জানা যায়, সংশোধিত অনুমোদিত প্রকল্পের নকশা অনুযায়ী মডেল মসজিদের জন্য ৪০ শতাংশ জায়গার প্রয়োজন। জেলা পর্যায়ে চারতলা ও উপজেলার জন্য তিনতলা এবং উপকূলীয় এলাকায় চারতলা মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সংস্কৃতিকেন্দ্র নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তরও স্থাপন করা হয়।

যেসব এলাকায় কার্যাদেশ দিয়েও জমি বুঝে পাওয়া যায়নি সেসবস্থানে দ্রুত জমির দখল বুঝে নেওয়ার কাজ শুরু করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..