রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সাপাহারে বীর মুক্তযোদ্ধার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন চকরিয়ায় জমি বিরোধে ছাত্রলীগ নেতা খুন:আটক-১ গভীর রাতে শীতার্তদের গায়ে কম্বল জড়িয়ে দিলেন ইউএনও ঘোড়াঘাটে বর্গা চাষি জুয়েলের লক্ষাধিক টাকার লাউ গাছের ক্ষতি সাধন খাগড়াছড়িতে গ্রাম ডাক্তারদের নিয়ে ব্র্যাক এর ম‍্যালেরিয়া নির্মূল ওরিয়েন্টেশন সাংবাদিক তাজ ফারাজুল ইসলাম চৌধুরী রচিত “যুগল গল্প”- বইয়ের মোড়ক উন্মোচন রাজশাহীতে একটি ঘরে আটক থাকা এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার নড়াইল-যশোর সড়কে ট্রাকের ধাক্কায় কাঁচামাল ব্যবসায়ী নিহত কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ গাজাসহ আটক করেছে ২মাদক ব্যবসায়ীকে ঘোড়াঘাটে নাবিল পরিবহনের গাইড এবং হেলপার ৫৮ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্থ অসহায়-দুস্থের মাঝে খাদ্যসামগ্রী ও হাইজিন কিট বিতরণ উলিপুর উপজেলায় বেতন বৈষম্য দাবিতে কর্মবিরতি পালিত কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ ৩দিন ব্যাপী অ্যাডভোকেসি,লবিং এবং নিগোসিয়েশন প্রশিক্ষণ উদ্বোধন কুড়িগ্রামে ২ হাজার হত দরিদ্র নারীদের মধ্যে স্বাস্থ্যসম্ম উপকরণ বিতরণ

গাইবান্ধায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১ হাজার ১৯৭

আল কাদরি কিবরিয়া সবুজ, (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার ৮ অক্টোবর, ২০২০
  • ৭৩ বার পঠিত


বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসে প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এ ছাড়া পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সারি। এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে গাইবান্ধায় মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১শ’ ৯৭ জনে। এত মৃত্যু আর আক্রান্তের ভিড়ে সুস্থ হওয়ার খবরও মিলছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জেলায় সুস্থ হয়ে আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১ হাজার ৯৬ জন। এ ছাড়া চিকিৎসাধীন ৮৭ জন। বৃহস্পতিবার (০৮ অক্টোবর) সকালে জেলা প্রশাসনের সবশেষ পরিসংখ্যানে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

গাইবান্ধা জেলার করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগ থেকে জেলার সাত উপজেলায় সেরে উঠেছে ১০৯৬ জন। এরমধ্যে গাইবান্ধা সদরে ৩৯১ জন, গোবিন্দগঞ্জে ৩১২ জন, সাদুল্লাপুরে ৯০ জন, পলাশবড়ীতে ৮৯ জন, সাঘাটায় ৭৪ জন, সুন্দরগঞ্জে ৭৮ জন ও ফুলছড়ি উপজেলায় ৬২ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

এ ছাড়া সংখ্যাধিক্য অনুযায়ি বৃহস্পতিবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গাইবান্ধা সদরে সবচেয়ে বেশি ৪৩৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে (এরমধ্যে পৌর এলাকায় ৩৩৪ জন)। এর পরের অবস্থানে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় পাওয়া গেছে ৩২২ জন (এরমধ্যে পৌর এলাকায় ১৭৭ জন), পলাশবাড়ী উপজেলায় ১০৯ জন (এরমধ্যে পৌর এলাকায় ৬৫ জন), সাদুল্লাপুর উপজেলায় ৯৯ জন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৮০ জন (এরমধ্যে পৌর এলাকায় ৩৪ জন), সাঘাটা উপজেলায় ৭৭ জন ও ফুলছড়ি উপজেলায় ৭২ জন।

গাইবান্ধায় বর্তমানে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ৮৭ জনের মধ্যে ৪৪ জন গাইবান্ধা সদরে, পলাশবাড়ীতে ১৬ জন, গোবিন্দগঞ্জে ৬ জন, ফুলছড়িতে ১০ জন, সাদুল্লাপুরে ৭ জন, সুন্দরগঞ্জে ১ জন ও সাঘাটায় ৩ জন রয়েছেন।

জানা গেছে, এখন পর্যন্ত জেলায় মোট ১৪ জন করোনা আক্রান্তরোগী মারা গেছেন। এরমধ্যে গোবিন্দগঞ্জে ৪ জন, সদরে ৩ জন, সাদুল্লাপুরে ২ জন, পলাশবাড়ীতে ৪ জন এবং সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আরও ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তবে করোনা সংক্রমণ নিয়ে স্থানীয়রা অনেকটাই অসচেতন। চলাচলে অসতর্কতা এবং সামাজিক দূরত্ব ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্বাস্থ্যবিধি কেউ সঠিকভাবে মেনে চলছেন না। সাধারণ মানুষ হাঁটবাজার, দোকানপাট ও রাস্তাঘাটে অবাধে চলাচল করছেন। চলছে চায়ের দোকানে আড্ডা। স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে কমেছে প্রশাসনের নজরদারিও। এতে করোনার ভয়াবহ সংক্রমণের আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্যসেবা সংশ্লিষ্টরা।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম দেখা দেওয়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বাংলাদেশসহ বিশ্বের দুই শতাধিক দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে এবং গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..