রবিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:১৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
দীঘিনালায় পার্বত্য প্রেসক্লাব ও সবুজ পাতার দেশ’র উদ্যোগে দুই গৃহহীনের ঘর নির্মাণ যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য বুড়িগঙ্গায় ভাসিয়ে দিতে চায় তাদের বঙ্গোপসাগরে ভাসিয়ে দিতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মানুষ প্রস্তুত নড়াইলে স্বপ্নের খোঁজে ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শীতবস্ত্র পেলো এতিম শিশু, বেদেপল্লী ও মানসিক ভারসাম্যহীনরা রংপুরের পীরগঞ্জে চাকুরী দেওয়ার নামে টাকা আত্মসাৎ উলিপুরে কবর দখল করে বসতঘর নির্মাণ কুড়িগ্রামে দলিত ও বঞ্চিত সম্প্রদায়কে আদমশুমারী-২০২১ এ অন্তর্ভুক্তির দাবিতে মানববন্ধন কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় শিল্পী সমিতির কমিটি গঠিত কুড়িগ্রামে নাগেশ্বরী ও ফুলবাড়ী উপজেলার পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে গাঁজা ও হিরোইন সহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক দীঘিনালায় জায়গা-জমি সংক্রান্ত পারিবারিক কলহে যুবকের মৃত্যু নওগাঁর সাপাহারে ফেন্সিডিল সহ যুবক আটক পলাশবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা মুজিববর্ষ উপলক্ষে নড়াইলে ফুটবল খেলায় মহাজন একাদশ চ্যাম্পিয়ন দীঘিনালায় বিরল রোগ আক্রান্ত ১০বছরের শিশু আরিফ বাঁচতে চায় দিনাজপুরে এন্টি টেররিজম ইউনিট কর্তৃক জঙ্গী সংগঠন আল্লাহর দলের আঞ্চলিক প্রধান আটক পলাশবাড়ী পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠু হবে-নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম

দিনাজপুরে সরকারের সাথে চুক্তি করেও গোডাউনে দেয়নি চাল অনেক হাসকিং মিল

চৌধুরী নুপুর নাহার তাজ, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় সোমবার ১২ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০৬ বার পঠিত

দিনাজপুর জেলার ১৩ টি উপজেলার হাসকিং মিল গুলির মিলাররা সরকারের সাথে চুক্তি করেও গোডাউনে চাল দেয়নি অনেকে। দিনাজপুরের খানসামায় সরকারি ভাবে হাস্কিং মিলগুলি চাল দেওয়ার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয় কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকারি বরাদ্দের চুক্তি থাকার পরেও অনেক হাস্কিং মিল মালিক সরকারকে দেয়নি সেই চুক্তিকৃত চাল। এক সময়ে বাজারে চাউলের মূল্য কম থাকায় হাস্কিং মিল মালিকরা লুফে নিয়েছিলো ব্যাপক সুযোগ সুবিধা কিন্তু বর্তমানে চাউলের মূল্য উর্ধ্ব গতি হওয়ায় অনেক মিলাররা বরাদ্দকৃত চাল সরকারি গোডাউনে দেয়নি। ফলে সরকারের চাহিদার ঘাটতি রয়েছে গোডাউন গুলোতে।

এ বিষয়ে খানসামা উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ মোস্তফা এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ৮৮৩.১৪০ মেট্রিকটন ৩৬ টাকা কেজি দরে উপজেলা থেকে ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়। এ বিষয়ে পাকের হাট খাদ্য গুদামের কর্মকর্তা সৌমিত্র বসাক জানান, চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পরও অনেক জন মিলার চাউল দেয়নি তাদের রিপোর্ট তৈরি করে কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে।

এব্যাপারে খানসামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, যে সমস্ত হাস্কিং মিল চুক্তি থাকার পরেও চাল দেয়নি সে সমস্ত হাস্কিং মিল মালিকদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর সিদ্ধান্ত গ্রহন করবে।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..