মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
ঘোড়াঘাট ৪ নং ইউপি’র তরুন উদ্যোক্তা নূরনবী এবার সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী পৌরসভা নির্বাচন ২০২০, মেয়র প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতিক পেলেন যারা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ সাঘাটায় মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই অনুষ্ঠিত দূর্গাপুরে কৃষক লীগের উদ্যোগে প্রান্তিক কৃষকদের কৃষি বীজ বিতরণ কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় ৪২ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ ২০২০ পালিত কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায় অটো থেকে ছিটকে নারী মৃত্যু ১ সাপাহারে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের এজেন্ট শাখার শুভ উদ্বোধন আলোর পথযাত্রী’ সহায়তায় সুস্থ হলেন ভ্যান চালক নাছের ধামইরহাটে দার্জিলিং জাতের কমলার চারা রোপন ধামইরহাটে জঙ্গিবাদ মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যুবলীগের বিক্ষোভ সমাবেশ বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন একসঙ্গে ৪৩ জন সাঁতারু র‍্যাবের অভিযানে চকরিয়ায় বাস ডাকাতির ঘটনায় ৬ ডাকাত গ্রেফতার ধামইরহাটে অজ্ঞাত রোগে মাছে মড়ক, ৩০ লাখ টাকার ক্ষতিতে মৎস্যচাষী’র হাহাকার চকরিয়ায় হরিনের মাংস বিক্রির অভিযোগে ১ ব্যক্তির ৩ মাসের সাজা

লংগদু নারী ইউপি সদস্যের পরিবারের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

আল মামুন পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় সোমবার ২৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ৬৩ বার পঠিত

রাঙামাটির লংগদু উপজেলার এক মহিলা ইউপি সদস্য জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

সোমবার (২৬অক্টোবর) সকালে শহরের রিপোটার্স ইউনিটির সম্মেলন কক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, লংগদু উপজেলার গুলাশাখালী ইউনিয়নের ১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য শাহিনা বেগম, তার স্বামী নাজিম উদ্দিন ও বোন হোসনে আরা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে শাহিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, আমি ইউপি সদস্য হওয়ায় সরকার কর্তৃক দুঃস্থদের মাঝে বিতরণের জন্য ভিজিডি ২০টি কার্ড পাই। রহিম চেয়ারম্যানের লালিত কয়েকজন আমার কাছ থেকে ১০টি কার্ড চাইলে আমি অপারগতা প্রকাশ করলে গত ১৯অক্টোবর আমার স্বামী ও আমার ওপর হামলা চালায়। তারা আমার মাথা ফাটায় ও আমার স্বামীর হাতের রগ কেটে দেয় এবং আমাদের কাছে গচ্ছিত ৬৩হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এতে আমি ও আমার স্বামী গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে লংগদু হাসপাতালে পরে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে কিছুটা সুস্থ্য আছি।

রহিম চেয়ারম্যানের হুমকির কারণে বাসায় থাকা তো দূরের কথা এলাকায়ও যেতে পারছি না। আমরা আমাদের জীবনের নিরাপত্তা চাই এবং সুষ্ঠু বিচার চাই।

তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম ১৯৭১সালে রাজাকার বাহিনীতে থাকাকালীন আমার মামা মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়ায় আমার নানাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করে। ওই ঘটনার বিচার চেয়ে আমার মা ময়মনসিংহ থানায় মামলা করেন। সেই থেকে আব্দুর রহিম আমাদের বিরুদ্ধে নানা সময় চক্রান্ত করে আসছেন এবং মামলা তুলে নিতেও বিভিন্ন সময় চাপ সৃষ্টি করেন। তিনি ক্ষমতাসীন দলের লোক হওয়ায় এলাকার কেউ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস করেন না।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..