বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:২০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ষড়য‌ন্ত্রের প্রতিবা‌দে মান্দায় ম‌হিলা আওয়ামী লী‌গের বি‌ক্ষোভ সমা‌বেশ চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে অভিযান মহিমাগঞ্জ চিনিকলের আখচাষী ও শ্রমিক কর্মচারীদের সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ ফুলছড়িতে ইউনিয়ন যুবলীগের অফিস উদ্বোধন করলেন ডেপুটি স্পিকার গোবিন্দগঞ্জে উগ্র-মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বাস্তবায়ন শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় রায়গঞ্জের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের মৃত্যু দুর্গাপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের আত্মহত্যা বঙ্গোপসাগর থেকে ৩ লাখ ইয়াবাসহ সাত মিয়ানমার নাগরিক আটক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কার্য্য হুমকি প্রদানকারী মমিনুল হকের বিরুদ্ধে কুড়িগ্রামে মানববন্ধন ধামইরহাটে আওয়ামী মহিলালীগের জঙ্গিবাদ- সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী র‌্যালি ও বিক্ষোভ সমাবেশ ধামইরহাটে কর্মজীবি ল্যাকটেটিং মাদার হেলথ ক্যাম্পে সেবা পেল ৪ শতাধিক মা খুলনা মহানগরীতে মাদক বিরোধী অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৪ বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পুনর্বাসন সোসাইটি কেন্দ্রীয় যুব কমান্ডের মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন রাজশাহীতে পৌরনির্বাচন কে কেন্দ্র করে তৃনমূল সিলেকশন ভোট নিয়ে অসন্তোষ

গাইবান্ধায় মাদক মামলার আসামির স্বেচ্ছায় থানায় এসে আত্মসমর্পণ

আল কাদরি কিবরিয়া সবুজ, (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার ৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ৯৩ বার পঠিত

মাদক ব্যবসা ছেড়ে চিরতরে ফিরে আসার প্রত্যয়ে গাইবান্ধার ৩টি মাদক মামলার আসামি আমিনুল ইসলাম ৩ নভেম্বর মঙ্গলবার সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খান মো. শাহরিয়ারের কক্ষে এসে তাঁর কাছে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করে। সে সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের উত্তর আনালেরতাড়ি গ্রামের মৃত মমতাজ উদ্দিনের পুত্র।

দীর্ঘদিন থেকে মাদক ব্যবসা করে আমিনুল একাধিক মামলায় জড়িয়ে পড়ে পুলিশের ভয়ে গ্রেফতার এড়াতে তাকে বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াতে হয়। এমনকি জীবন যাপনের তাগিদে সে ঢাকায় গিয়ে রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে থাকে। সেখানেও তাকে পুলিশের ভয়ে সর্বক্ষণ তটস্থ থাকতে হয়। তার স্ত্রী এবং দুই মেয়ে ও তিন ছেলে গ্রামেই বসবাস করে। এতে সে পরিবার- পরিজন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে এবং তার পরিবার-পরিজনের জীবন জীবিকা নির্বাহ করাও অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ফলে সে মাদক ব্যবসা চিরতরে ছেড়ে দিয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেয়। অবশেষে সে মামলা ঘাড়ে নিয়েই গাইবান্ধা সদর থানায় দুপুরে হঠাৎ করেই ওসির কক্ষে ঢুকে আত্মসমর্পণ করে। এসময় অফিসার ইনচার্জের কাছে মাদকের ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রত্যয় ব্যক্ত করে।

গাইবান্ধা সদর থানা অফিসার ইনচার্জ খান মো. শাহরিয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৩টি মাদক মামলায় ইতোমধ্যে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি রয়েছে। সুতরাং তাকে এসব মামলায় আদালতে প্রেরণ করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..