বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ষড়য‌ন্ত্রের প্রতিবা‌দে মান্দায় ম‌হিলা আওয়ামী লী‌গের বি‌ক্ষোভ সমা‌বেশ চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে অভিযান মহিমাগঞ্জ চিনিকলের আখচাষী ও শ্রমিক কর্মচারীদের সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ ফুলছড়িতে ইউনিয়ন যুবলীগের অফিস উদ্বোধন করলেন ডেপুটি স্পিকার গোবিন্দগঞ্জে উগ্র-মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বাস্তবায়ন শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় রায়গঞ্জের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের মৃত্যু দুর্গাপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের আত্মহত্যা বঙ্গোপসাগর থেকে ৩ লাখ ইয়াবাসহ সাত মিয়ানমার নাগরিক আটক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কার্য্য হুমকি প্রদানকারী মমিনুল হকের বিরুদ্ধে কুড়িগ্রামে মানববন্ধন ধামইরহাটে আওয়ামী মহিলালীগের জঙ্গিবাদ- সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী র‌্যালি ও বিক্ষোভ সমাবেশ ধামইরহাটে কর্মজীবি ল্যাকটেটিং মাদার হেলথ ক্যাম্পে সেবা পেল ৪ শতাধিক মা খুলনা মহানগরীতে মাদক বিরোধী অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৪ বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পুনর্বাসন সোসাইটি কেন্দ্রীয় যুব কমান্ডের মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন রাজশাহীতে পৌরনির্বাচন কে কেন্দ্র করে তৃনমূল সিলেকশন ভোট নিয়ে অসন্তোষ

রূপসা-শেখপুরা খেয়া ঘাটে ২ টাকার পরিবর্তে ৫ টাকা হারে আদায় অব্যহত

মোঃ মাইনুল ইসলাম, খুলনা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় বুধবার ১১ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৭ বার পঠিত

খুলনার রূপসা-শেখপুরা খেয়া ঘাটে শেখপুরা বাজার এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী যুবকের নেতৃত্বে যথাযথ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক স্থাপনকৃত নির্দেশনা বোর্ড উপেক্ষা করে জনসাধারনের কাছ থেকে ২ টাকার পরিবর্তে ৫ টাকা হারে আদায় অব্যহত রয়েছে।

এ ব্যাপারে পারাপাররত জনসাধারণ একাধিক অভিযোগ করেও বিষয়টি সুরাহা পাননি। সরেজমিনে ঘুরে ভুক্তভোগী জনসাধারনের সাথে আলাপ করে বিষয়টি সত্যতা পাওয়া গিয়েছে। ঘাটে গিয়ে কথা হয় চাদপুর এলাকার মাঝি টিটোর সাথে। তিনি নিজে স্বীকার করেন ২ টাকার পরিবর্তে মাথাপিছু ৫ টাকা হরে আদায় করা হয় এবং প্রতি ভ্যান ১৫ টাকা হারে নেওয়া হয়।

বামনডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা ট্রলারে পারাপাররত যাত্রী শেখ জাবেদ আলী বলেন এখানে দু’পাড়ে সাইনবোর্ডে জনপ্রতি ২ টাকা হরে নেওয়ার কথা থাকলেও মাঝিরা জনপ্রতি ৫ টাকা না হলে নৌকা ছাড়তে চাই না। শেখপুরা গ্রামের আলামিন, মধু শেখ এবং আনন্দনগর গ্রামের আকবর শেখ প্রতিনিয়ত এ ঘাটে ট্রলার চালায়।

তারা জনসাধারণকে জিম্মী করে ২ টাকার প্রতিবর্তে ৫ টাকা হারে আদায় করছে দীর্ঘদিন ধরে। শুক্রবার এবং সোমবার সপ্তাহের এ দুটি দিনে দুপাড়েই হাট বসে। তখন অন্যান্য দিনের তুলনায় লোক পারাপার হয় অনেক বেশি এবং মাছের ড্রাম পার হয় প্রায় ৫ শতাধিক। অভিযোগ মতে উক্ত প্রভাবশালী মাঝিরা ড্রাম প্রতি ৫০ টাকা হারে আদায় করলেও প্রতিবাদ করার কেউ নেই।

জানাগেছে, ভোর ৫ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত উক্ত ঘাট এলাকায় প্রতিদিন প্রায় ৫ সহ¯্রাধিক লোক পার হয়। সে মোতাবেক উক্ত ঘাট এলাকায় মাঝিদের ১০ হাজার টাকা আদায় হওয়ার কথা থাকলেও সেখানে ২৫ হাজার টাকা জনসাধারনের কাছ থেকে প্রতিদিন আদায় করা হচ্ছে।

আজগড়া গ্রামের সুশান্ত এসেছিলেন শিয়ালী বাজারে মাছ বিক্রি করতে। তিনি জানান হাড়ি প্রতি ১৫ টাকা হারে আদায় করা হচ্ছে এবং বিষয়টির প্রতিবাদ করলে তাকে নৌকা থেকে নেমে যেতে বলা হয়।

একই অভিযোগ করলেন কচাতলা বাজার এলাকার বিনয় মজুমদার, শেখপুরা এলাকার আরিফুল সহ পারাপাররত একাধিক ব্যক্তি। সূত্র মতে উক্ত ঘাট এলাকা থেকে মাঝিদের দ্বারা যাত্রীদের কাছ থেকে নেওয়া টাকার একটি বড় অংশ শেখপুরা বাজার এলাকার ৩/৪ জন প্রভাবশালীকে প্রদান করা লাগে।

অনেকের অভিযোগ এ কারনেই জনসাধারনের কাছ থেকে ২ টাকার পরিবর্তে ৫ টাকা, প্রতি ভ্যান ১০ টাকার পরিবর্তে ১৫ টাকা, প্রতি মাছের ড্রাম ২০ টাকার পরিবর্তে ৫০ টাকা করে দীর্ঘদিন ধরে আদায় অব্যহত আছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকার সুধীজনের বক্তব্য উক্ত এলাকায় ব্রীজ না হলে এমন অবস্থার পরিবর্তন হবেনা।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার জানান, উক্ত ঘাট এলাকায় আকস্মিক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে এবং দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন


এ জাতীয় আরো খবর..