ঘরে বসেই যেভাবে কমাতে পারবেন আপনার পেটের মেদ

অনলাইন সংস্করণ
অনলাইন সংস্করণ অনলাইন সংস্করণ
প্রকাশিত: ১:১৯ পূর্বাহ্ন, ০৫ জুলাই ২০২১ | আপডেট: ৬:৩৫ পূর্বাহ্ন, ২৬ অক্টোবর ২০২১

নিজেকে সুন্দর দেখাতে সবাই অতিরিক্ত চর্বি কমিয়ে ফেলতে চান। শহরের জীবনে দৈনন্দিন ফাস্টফুড নির্ভরতা, হাঁটা বা শরীরচর্চার অভাব। এছাড়া ভুল ব্যায়াম বা সঠিক খাবার না খাওয়ার কারণেও কাঙ্খিত সাফল্য আসে না মেদ ঝরানোর ক্ষেত্রে।এই মহামারিকালে সুস্বাস্থ্য বজার রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বিশেষজ্ঞরাও পরামর্শ দিচ্ছেন অতিরিক্ত ওজন ঝরিয়ে ফিট থাকার।পুষ্টিবিদদের মতে, ওজন কমানোর মূলমন্ত্র হলো জীবনধারা পরিবর্তন করা ও সঠিক খাবার খাওয়া। সম্প্রতি সেলিব্রিটি পুষ্টিবিদ রুজুতা দিওয়েকর জানিয়েছেন কীভাবে ঘরে বসেই দ্রুত মেদ ঝরানো যায়। পুষ্টিবিদ রুজুতার ডায়েট চার্ট অনুসরণ করেই কারিনা কাপুর, আলিয়া ভাটসহ বলিউড তারকারা ফিট থাকেন।

রুজুতা তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেছেন যাতে তিনি প্রতিদিনের কী খাওয়া উচিত এবং কী খাওয়া উচিত নয় তার উপায় বাতলে দিয়েছেন। করিনার ডায়েটিশিয়ান রুজুতা দিওয়েকর সবসময়ই প্রাকৃতিক ও দেশজ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন৷ যা কেবল ওজন কমবে তা নয়; আপনার অন্যান্য শারীরিক রোগ থেকে সম্পূর্ণ মুক্তি পাবেন।

সকালের খাবার 

সকালে দীর্ঘক্ষণ না খেয়ে থাকা যাবে না। রুজুতা বলেছেন, সকালে ওঠার ১০ থেকে ১৫ মিনিটের পরে কিছু খাওয়া উচিত। এটি আপনার বিপাককে আরও বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করবে। আপনি যদি সকালে চা বা কফি খান; তাহলে আর এই ভুল করবেন না। এতে পেটে জ্বালা-পোড়া ভাব হতে পারে। এ ছাড়াও সকালে বেশি মশলাদার জিনিস খালি পেটে মোটেই খাওয়া উচিত নয়। বরং সকালে ওঠার ১৫ মিনিট পরে আপনি ফল বা শুকনো ফল খেতে পারেন।

ফলের ক্ষেত্রে আপনি কলা, আপেল ইত্যাদি খেতে পারেন। শুকনো ফল জলে ভেজানো বাদাম ও আখরোট খাওয়া যেতে পারে। সকালের খাবার যেন হয় স্বাস্থ্যসম্মত। এ সময় অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া উচিত নয়, মৌসুমী ফল, ডাবের পানি বা ঘরে তৈরি সিরাপ খেতে পারেন। মনে রাখবেন, সকালে চা বা কফি পান করবেন না।

দুপুরের খাবার

মধ্যাহ্নভোজ শেষ করুন দুপুর ১টার মধ্যে। আপনি যদি সত্যিই সুস্থ থাকতে চান তবে আপনি কী খাচ্ছেন সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। খাদ্যতালিকায় শাক-সবজি, মাছ বা মুরগির মাংস ও সালাদ রাখতে ভুলবেন না।

সন্ধ্যার স্ন্যাকস

রজুতার পরামর্শ অনুযায়ী, বিকেল ৪-৬টার মধ্যে বাদাম, ঘরে তৈরি খাবার, স্প্রাউট, চিনাবাদাম বা দুধ খেতে পারেন। যেকোনো রকমের নোনতা বা মিষ্টি খাবারও নয়। এ ছাড়াও বিকেল ৪টার পর চা-কফি পান করবেন না। রাতের খাবার অনেকেই গভীর রাতে খাবার খেয়ে থাকেন। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। রাতে ঘুমানোর অন্তত ২ ঘণ্টা আগে ডিনার শেষ করা উচিত। সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে রাতের খাবার শেষ করবেন।

রাতের খাবারে খিচুড়ি বা ডাল ভাত খেতে পারেন। রাতে ভাত খেলে আপনার হজম সমস্যা হবে না। সঙ্গে শাক-সবজি, সালাদ রাখতে ভুলবেন না।

সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে